৩৫ টাকা রোজে দিনমজুর থেকে বিশ্বকাপ জয়ী ক্রিকেটার

রবিবার, নভেম্বর ১১, ২০১৮

স্পোর্টস ডেস্ক : ক্রিকেটার না হলে এতদিনে হয়তো আফ্রিকার কোথাও দিনমজুরের কাজ করতাম। আমার এলাকার অনেক ছেলে ওখানেই কাজ করে। আমারও ভবিষ্যৎ তাই হতো। একটা সময় ৩৫ টাকা রোজে টাইলস কোম্পানিতে দিনমজুরের কাজ করতাম। সেখান থেকে বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য। এই জীবনে আর কী চাই! অবসর বেলায় তাই কোনও আক্ষেপ নেই। কথাগুলো বলতে বলতে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ছিলেন মুনাফ প্যাটেল।

২০১১ বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় দলের বোলিং কোচ ছিলেন এরিক সিমন্স। তিনি একবার বলেছিলেন, আড়ালে থাকা হিরো মুনাফ। ভারতের বিশ্বকাপ জয়ের পিছনে ওর অনেক অবদান রয়েছে। জাহির খান, যুবরাজ সিংদের মতোই।

১৫ বছরের ক্রিকেট কেরিয়ারে ইতি টানলেন মুনাফ। অবসরের বেলার মুনাফ বলছেন, আমি গ্রামের মানুষ। ইংরেজি জানতাম না। এমনকী শহুরে আদব-কায়দাও জানা ছিল না। ক্রিকেটের জন্যই সব শেখা। শুরুতে শহরের বড় বড় মানুষদের সঙ্গে ওঠা-বসা করতে হত। তারা আমাকে যত জেনেছেন, তত ভালবেসেছেন। ক্রিকেটের কাছে আমি ঋণী। কোনও দিনও ভাবতেই পারিনি, জীবনে এতটা সাফল্য পাব। আমি নিম্ন মধ্যবিত্ত বাড়ির ছেলে। তাই কখনও এত বড় স্বপ্ন দেখার সাহস করতে পারিনি ।

২০১১ বিশ্বকাপে ১১টি উইকেট পেয়েছিলেন মুনাফ। ভারতের বিশ্বকাপ জয়ের পিছনে তার সত্যিই অনেক বড় অবদান ছিল।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেও দুবাইয়ে টি-১০ লিগে খেলবেন মুনাফ। এছাড়া ক্রিকেট ছাড়ার পর কোচিংয়ে আসারও পরিকল্পনা রয়েছে তার।

শেন ওয়ার্ন নিজের আত্মজীবনী নো স্পিন-এও মুনাফের প্রসঙ্গ উল্লেখ করেছেন। সেখানে মুনাফকে বড় হৃদয়ের মানুষ বলে ব্যাখ্যা করেছেন অজি স্পিন কিংবদন্তি। একইসঙ্গে, মুনাফের উপস্থিত বুদ্ধিরও তারিফ করেছেন তিনি।

মুনাফ জানিয়েছেন ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের সঙ্গে আলোচনার পরই তিনি ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। অবসরের পিছনে বিশেষ কোনও কারণ নেই বলেও জানিয়েছেন এই গুজরাটি ক্রিকেটার। নতুনদের জন্য সুযোগ বাড়াতেই তিনি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তথ্যসূত্র : জি নিউজ