শরীয়তপুর-৩: বাহাদুর বেপারীর জোর প্রচারণা

সোমবার, নভেম্বর ৫, ২০১৮

শরীয়তপুর-৩ (ডামুড্যা-ভেদরগঞ্জ-গোসাইরহাট) আসনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সভাপতি বাহাদুর বেপারী। ছাত্রলীগের সাবেক এই নেতা শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে নৌকার পক্ষে ভোট চাইছেন। চালাচ্ছেন বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচারণা। নিজের কর্মগুণে ইতোমধ্যেই তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মাঝে বেশ জনপ্রিয় তিনি। তারা চাইছেন এবার যেন বাহাদুর বেপারীকেই আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেয়া হয়।

জানা গেছে, বাহাদুর বেপারী নৌকার পক্ষে শরীয়তপুর-৩ আসনের অন্তর্গত গোসাইরহাট, ডামুড্যা ও ভেদরগঞ্জ উপজেলার ১৯টি ইউনিয়নের ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। ছাত্রলীগের সাবেক এই সভাপতি বাড়ি বাড়ি গিয়ে জনগণের সামনে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরছেন। শেখ হাসিনাকে কেন দরকার তা জনগণকে বুঝাচ্ছেন। শুধু তাই নয় ডিজিটাল প্লাটফর্মেও সরকারের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরছেন এই তরুণ নেতা।

স্থানীয় কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, আমরা তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা চাই আমাদের মতামতের ভিত্তিতে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হোক। জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য ও স্বচ্ছ ইমেজের প্রার্থী না হলে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হলেও জয়ী হওয়া যাবে না। যারা দীর্ঘদিন ছাত্র রাজনীতি করে এখন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত, দলের জন্য যাদের ত্যাগ রয়েছে, যারা ক্ষমতায় এলেও আমাদের মূল্যায়ন করে তাকেই আমরা এমপি হিসেবে চাই।

তারা বলেন, আমাদের তো চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। আমরা চাই যেই এমপি নির্বাচিত হোক না কেন আমাদের খোঁজ-খবর নেবেন, এলাকার সমস্যা সমাধান ও উন্নয়নে কাজ করবেন। বলতে গেলে এসব থেকে এখন আমরা বঞ্চিত। তবে তরুণ নেতা বাহাদুর বেপারীর কাছে আমরা সবটাই পেয়েছি। তিনি নিয়মিত এলাকায় আসছেন, সবার খোঁজ-খবর নিচ্ছেন, মানুষের বিপদে আপদে এগিয়ে আসছেন। তাছাড়া, তিনি তৃণমূল নেতাদের মূল্যায়ন করছেন। আমরা শরীয়তপুর-৩ আসনের এমপি হিসেবে তাকেই দেখতে চাই।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় দুই চেয়ারম্যান বলেন, বর্তমানে কয়েকজন প্রভাবশালী নেতার কারণে অনেকেই এমপির কাছে ভিড়তে পারে না। যে কারণে তৃণমূল নেতাদের সাথে স্থানীয় এমপির বেশ দূরত্ব তৈরি হয়েছে। তাছাড়া, এমপির নাম ভাঙিয়ে তার কাছের কয়েকজন নেতা গত স্থানীর সরকার নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্য করেছে। অনেক জায়গায় আবার বিএনপি প্রার্থীকেও ভোট কেটে পাশ করিয়ে দিয়েছে। এসব কারণে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা-কর্মী এখন এই আসনে তৃণমূলকে মূল্যায়ন করবে এমন নেতা চান।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আশায় বুক বেধেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। তাদের দাবি বাহাদুর বেপারীকেই নৌকার মাঝি করা হোক।

শুধু তৃণমূল নয় ছাত্রলীগের সাবেক এই নেতা তরুণদের কাছেও বেশ জনপ্রিয়। এলাকায় মাদকবিরোধী কর্মকাণ্ড, বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি, ঝড়ে পড়া স্কুল-কলেজের দরিদ্র শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার জন্য আর্থিক সহযোগিতা করে বেশ সুনাম কুঁড়িয়েছেন তিনি। তার নির্বাচনী প্রচারণাতেও তরুণদেরকেই বেশি দেখা গেছে।

কথা হয় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সভাপতি বাহাদুর বেপারীর সাথে। তিনি বলেন, আমি দেশরত্ন শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম ও সাফল্যের চিত্র জনগণের কাছে তুলে ধরছি। এলাকার মানুষের নিয়মিত খোঁজ-খবর নেয়া, তাদের বিপদে আপদে এগিয়ে আসা আমার নৈতিক দায়িত্ব। আমি এই কাজটিই করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, আমি এবার শরীয়তপুর-৩ আসন থেকে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশা করছি। তবে মনোনয়ন দেয়া না দেয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতে। আমি আমার এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। যদি মনোনয়ন পাই তাহলে কাজের গতি আরও ত্বরান্বিত হবে। মনোনয়ন না পেলেও আওয়ামী লীগের হয়েই কাজ করে যাবো। এ সময় দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনা সরকারকে আবারও ক্ষমতায় আনার আহ্বান জানান তিনি।