সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে চাই: যুক্তফ্রন্টকে প্রধানমন্ত্রী

শুক্রবার, নভেম্বর ২, ২০১৮

ঢাকা : প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে চাই, যাতে জনগণ তাদের নেতা খুঁজে নিতে পারেন। কীভাবে সেই নেতৃত্ব খুঁজে নেবে, সে পথ বের করাই আমাদের কাজ। তিনি বলেন, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ চায় আওয়ামী লীগ। এই নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণে কোনো প্রতিবন্ধকতা থাকবেনা।

শুক্রবার সন্ধ্যায় গণভবনে বিকল্প ধারা বাংলাদেশ’র একাংশের সঙ্গে সংলাপের সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, ‘গণতান্ত্রিক ধারা ছাড়া কোনো দেশের উন্নয়ন সম্ভব না। গণতান্ত্রিক ধারাটা অব্যাহত থাকুক। তাহলেই উন্নয়নের গতি সচল থাকবে।’

সংলাপে অংশ নিতে শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বিকল্পধারার একাংশের চেয়ারম্যান ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বে ২১ সদস্যের প্রতিনিধিদল গণভবনে প্রবেশ করেন। এর আগে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় বারিধারার বাসা থেকে গণভবনের উদ্দেশে তারা রওনা হন।

সংলাপে ১৪ দলীয় জোটের ২৩ সদস্যের নেতৃত্ব দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সংলাপে বি চৌধুরীর নেতৃত্বে ১৪ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নেয়ার কথা থাকলেও পরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে গণভবনে যান জোটের ২১ নেতা।

বি চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলে আছেন বিকল্পধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান, বিকল্পধারার প্রেসিডিয়াম সদস্য শমসের মবিন চৌধুরী, গোলাম সারোয়ার মিলন, আবদুর রউফ মান্নান, ইঞ্জিনিয়ার মুহম্মদ ইউসুফ, সহসভাপতি মাহমুদা চৌধুরী, মাহবুব আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার ওমর ফারুক এবং নির্বাহী সদস্য সাবেক এমপি মাজহারুল হক শাহ চৌধুরী।

এছাড়া সাবেক সংসদ সদস্য এইচ এম গোলাম রেজা, নাজিম উদ্দিন আল আজাদ, দেলোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ ন্যাপের একাংশের সভাপতি জেবেল রহমান গানি, মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির একাংশের চেয়ারম্যান (এনডিপি) খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তুজা, মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ইশা, শেখ আসাদুজ্জামান, মাহবুবুর রহমান জয় চৌধুরী, দীলিপ কুমার দাশ এবং হামদুল্লাহ আল মেহেদী সংলাপে অংশ নিয়েছেন।

জানা গেছে, সংলাপ শেষে রাতে বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বারিধারার বাসায় সাংবাদিকদের ব্রিফ করা হবে।

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্টের আহ্বানে সাড়া দিয়ে তাদের সংলাপে ডাকার পরই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে বসতে আগ্রহ প্রকাশ করে চিঠি দেন একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। চিঠি পেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতে সাড়া দেন।