সংলাপের সফলতা নিয়ে বিশ্লেষকরা যা বললেন

বুধবার, অক্টোবর ৩১, ২০১৮

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে সংলাপে বসছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণভবনে যাচ্ছেন ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্টের ১৫ জন নেতা। বাংলাদেশের রাজনীতিতে এর আগেও বিভিন্ন সঙ্কটকালীন মূহুর্তে সংলাপ অনুষ্ঠিত হলেও সফলতার মুখ দেখেনি সেসব আলোচনা।

নির্বাচন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া সংলাপ নিয়ে দেশের বুদ্ধিজীবীদের মন্তব্য ইতিবাচক। সংলাপ প্রসঙ্গে বিশিষ্ট আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক বলেন, সমাধান চাইলে আমি বড় কোন বাধা দেখি না। একদিকে সাত দফা আর অন্যদিকে কোন দফা নেই। এক্ষেত্রে উভয়কেই ছাড় দিতে হবে। আর আমরাও আশাবাদী উভয়পক্ষই কিছু না কিছু ছাড় দেবে। এরকম মানসিকতা থাকলে সংলাপের একটা ফল নিশ্চয়ই আসবে। আর ফল না আসলে ধরে নেব আমাদের রাজনৈতিদক নেতৃবৃন্দের এখনো প্রজ্ঞা ও অভিজ্ঞতার অভাব রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, সংবিধানের ১২৩(৩) এর (খ) ধারা অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী যেকোন সময় সংসদ ভেঙ্গে দিতে পারেন। এখন যদি সংসদ ভেঙ্গে দেয়া হয় তাহলে সেটা সংবিধানের মধ্য থেকেই হবে। এটা হলেই তো অনেক বড় একটা বাধা কেটে যায়। এভাবেই বিভিন্ন বিষয়ে ছাড় দিয়ে এই সমাধান সম্ভব।

তত্তাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেছেন, কিছু বিষয় আছে যেগুলো সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য অপরিহার্য। যেমন সংসদ ভেঙ্গে দেয়া বা নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করা যেহেতু নির্বাচন কমিশন মোটামুটি আস্থা হারিয়েছে। এগুলো দেন দরবারের বিষয় না এগুলো সিদ্ধান্তের বিষয়। সংলাপটা যেন নিছকই একটা আলোচনার মধ্যে না থেকে সমাধানের দিকে যায়।

তিনি আরো বলেন, সংবিধান নানাভাবে সংশোধন করা হয়েছে। সেগুলো যদি পক্ষপাতদুষ্ট হয় বা তেমন জাতীয় আলোচনা ছাড়াই সংশোধন হয় এসব বিষয় নিয়ে সংলাপে আলোচনা হবে হয়তো।