একনেকে রোহিঙ্গাদের জন্য মাল্টি সেক্টর প্রকল্প অনুমোদন

মঙ্গলবার, অক্টোবর ৩০, ২০১৮

ঢাকা : জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) রোহিঙ্গাদের জন্য মাল্টি সেক্টর সহায়তাসহ ২৪ প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। আজ মঙ্গলবার রাজধানীর শেরে বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে এক সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল এ তথ্য জানান।

আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, এ ২৪ প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট খরচ ধরা হয়েছে ২৪ হাজার ৭৪০ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে দেওয়া হবে ১৯ হাজার ৩৬১ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। এছাড়া বাস্তবায়নকারী সংস্থা দেবে ৩০৬ কোটি চার লাখ টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে পাঁচ হাজার ৭২ কোটি ৬৬ লাখ টাকা খরচ করা হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম এবং শিল্প ও শক্তি বিভাগের সদস্য শামীমা নার্গিস।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গারা যতদিন কক্সবাজারে থাকবেন ততদিন তাদের ভালো-মন্দ দেখার দায়িত্ব আমাদের। আমরা তাদের ভালো থাকার ব্যবস্থা করছি। যখন তারা মিয়ানমারে ফেরত যাবেন তখন সেখানকার স্থানীয় বাংলাদেশিরা এসব অবকাঠামোর সুযোগ সুবিধা ভোগ করবেন। কেননা রোহিঙ্গাদের কারণে তারা অনেক কষ্ট ভোগ করছেন। বিশ্বব্যাংক ও এডিবিসহ অনেক সংস্থা ও দেশ অনুদান দিচ্ছে। আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।

তিনি আরও বলেন, জরুরি ভিত্তিতে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় মাল্টি সেক্টর প্রকল্পটির প্রাক্কলিত খরচ ধরা হয়েছে এক হাজার ৫৭ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ৯ কোটি ৫৬ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে এক হাজার ৪৮ কোটি ২৮ লাখ টাকা। এতে সাহায্যে করেছে বিশ্বব্যাংক। এটি স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর বাস্তবায়ন করবে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২১ সালের মধ্যে এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে। প্রকল্প এলাকা হচ্ছে, চট্টগ্রাম বিভাগের কক্সবাজার জেলার টেকনাফ ও উখিয়া উপজেলা।

পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য সুপেয় পানি, স্বাস্থ্য ও পয়ঃনিষ্কাষণ, আশ্রয় শিবিরের ভেতরে সড়ক, ফুটপাথ, বাতি, হাটবাজার উন্নয়ন, যোগাযোগকারী সড়ক, সেতু, সাইক্লোন সেল্টার, মাল্টিপারপাস কমিউনিটি কেন্দ্র, অগ্নিনির্বাপন যন্ত্র ইত্যাদি কাজ অতি জরুরি ভিত্তিতে নির্মাণ করা প্রয়োজন। আশ্রয় শিবিরগুলোতে মানবিক সহায়তা দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা সহায়তা দিলেও তা সৃষ্ট সংকট মোকাবিলায় অপর্যাপ্ত।

একেনেকে অনুমোদন পাওয়া প্রকল্পগুলো হচ্ছে, বগুড়া থেকে সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশন পর্যন্ত নতুন ডুয়েলগেজ রেল লাইন নির্মাণ, এটি বাস্তবায়নে খরচ ধরা হয়েছে ৫ হাজার ৫৭৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা। এছাড়া, ঈশ্বরদী থেকে পাবনা হয়ে ঢালারচর পর্যন্ত নতুন রেললাইন নির্মাণ (দ্বিতীয় সংশোধিত), এই প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ৭৩৭ কোটি ১৮ লাখ টাকা।