সমাবেশস্থলে জড়ো হচ্ছেন ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীরা

শনিবার, অক্টোবর ২৭, ২০১৮

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশকে সামনে রেখে নুর সড়কের নাসিমন ভবনের সামনে জড়ো হচ্ছেন নেতাকর্মীরা।সমাবেশে আসতে নেতা-কর্মীরা পুলিশি বাধার সম্মুখীন হচ্ছে অভিযোগ করে উত্তরজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার বেলায়েত হোসেন বলেন, সকাল থেকে বিভিন্ন মোড়ে পুলিশ নেতাকর্মীদের বাধা দিচ্ছে। গতকাল রাতেও নগরী এবং জেলার বিভিন্ন উপজেলায় পুলিশ নেতাকর্মীদের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা মঞ্চ একটু বড় করতে চেয়েছি কিন্তু পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এছাড়া নগরীর কাজিরদেউরি পর্যন্ত মাইক দিতে চাইলেও পুলিশ দেয়নি।

শনিবার (২৭ অক্টোবর) দুপুর ২টায় এ সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।

এদিকে, সমাবেশকে ঘিরে যাতে করে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয় সেজন্য সমাবেশস্থল ও এর আশেপাশের এলাকাগুলোতে পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। সমাবেশস্থলের প্রবেশদ্বারে রয়েছে পুলিশের কড়া নজড়দারি।

সিএমপির কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন বলেন, সমাবেশের নিরাপত্তায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সঙ্গে আছে আইন প্রয়োগকারী অন্যান্য সংস্থার সদস্যরাও। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে কঠোরভাবে দমন করা হবে।

এদিকে, সকালে ঐক্যফ্রন্ট নেতারা হযরত আমানত শাহর মাজার জেয়ারতের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু করেছেন। আর গভীর রাত থেকে শুরু হওয়া মঞ্চ তৈরির কাজ এখনো চলছে।

আয়োজকরা জানান, চট্টগ্রাম মহানগর ও এর আশপাশ থেকেই আজকের সমাবেশে নতুন এ জোটে থাকা বিভিন্ন দলের নেতাকর্মীরা সমাবেশে অংশ নিবেন। এই জন্য ইতোমধ্যে প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এখন শুধু সমাবেশে যোগ দেয়ার অপেক্ষায়। সমাবেশে যোগ দেওয়ার আগে নগরের লালদীঘির পাশে হযরত আমানত শাহর মাজার জিয়ারত করবেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

সমাবেশে যোগ দিতে একদিন আগেই চট্টগ্রামে অবস্থান নিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রণ্টের শরীকদল জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও তার স্ত্রী।

এর আগে চট্টগ্রামে এসে অবস্থান নিয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান, বরকত উল্লাহ বুলু, মীর মো. নাছির উদ্দিন, মো. শাহজাহান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদীন ফারুক, গোলাম আকবর খন্দকার, এস এম ফজলুল হক ফজু, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি ও মৎস্যজীবি বিষয়ক সম্পাদক লুৎফর রহমান কাজল।

জাতীয় ঐক্যফ্রণ্টের শরীক দল নাগরিক ঐক্যের চট্টগ্রাম মহানগরের সাধারণ সম্পাদক ফখরুদ্দিন মোহাম্মদ লাহেরী জানান, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. আবদুল মঈন খান, নাগরিকের ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না ও জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বিমানে আসার কথা রয়েছে। বেলা এগারটা নাগাদ তারা চট্টগ্রামে এসে পৌঁছবেন।

এর আগে শুক্রবার বেলা সোয়া এগারটায় সিএমপির কমিশনার মাহবুববর রহমান মোবাইল ফোনে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনকে সমাবেশের অনুমতি দেয়ার কথা মৌখিকভাবে জানান। পরে বিকেলে লিখিতভাবে ২৫ শর্তে সমাবেশ করার অনুমতি দেয় সিএমপি উপ-কমিশনার (বিশেষ শাখা) আবদুল ওয়ারিশ।

এতে বলা হয়েছে, দুপুর দুইটা থেকে শুরু করে বিকেল ৫টার মধ্যেই শেষ করতে হবে সমাবেশটি।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন, অল্প সময়ের মধ্যেই সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এখন সমাবেশ শুরুর অপেক্ষায়। আশাকরি আজকের সমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হবে।

উল্লেখ্য, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের চট্টগ্রামে এটি দ্বিতীয় সমাবেশ। এর আগে ২৪ অক্টোবর সিলেটে প্রথম সমাবেশ করেন নতুন এই জোটটি।