ভোট দেওয়ার সুযোগ পেলে জনগন ‘ভাঙা নৌকায়’ উঠবে না : ফখরুল

শনিবার, অক্টোবর ২৭, ২০১৮

চট্টগ্রাম : জনগণ ভোট দেওয়া সুযোগ পেলে আওয়ামী লীগের ভাঙা নৌকায় উঠবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আপনাদের ভয়ের কারণ, আপনারা জানেন যে যদি ভোট দেয়ার সুযোগ পায় আপনাদের ভাঙা নৌকায় জনগণ আর উঠবে না।

আজ শনিবার চট্টগ্রামে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে তিনি এ সব কথা বলেন।

নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন- এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে ড. কামাল হোসেনসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কেন্দ্রীয় ও নগর শাখার নেতারা উপস্থিত ছিলেন। নগরীর নূর অাহমদ সড়কে নগর বিএনপির কার্যালয় নাসিমন ভবনের সামনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

ফখরুল বলেন, রাস্তার মধ্যে জনগণকে আটকে রেখে কোনদিন কোন সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারেনি। এ সরকারও পারবে না। সরকারকে উদ্দেশ্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, অাপনারা কেন ভুলে যান ইতিহাস? কেন অাপনারা মানুষের ভাষা বুঝেন না?

সভায় আরো উপস্থিত আছেন বিএনপি নেতা আমানউল্লাহ আমান, মির্জা আব্বাস, বরকত উল্লাহ বুলু, মোহাম্মদ শাহজাহান, জয়নুল আবেদিন, গোলাম আকবর খন্দকার, মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, ফরহাদ হালিম ডোনার, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহীমসহ ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।

এদিন ঐক্যফ্রন্টের জনসভা শুরুর প্রায় চারঘণ্টা আগে থেকেই সমাবেশস্থলে আসতে শুরু করেন বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। শুক্রবার রাত থেকে শুরু হয় সমাবেশ মঞ্চ তৈরির কাজ। জনসভায় অংশ নিতে শনিবার সকালে চট্টগ্রামে পৌঁছান জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামী আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। শুক্রবার রাতেই চট্টগ্রামে আসেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।

সকালে চট্টগ্রামে পৌঁছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা নগরীর জেল রোডে আমানত শাহ’র মাজার জিয়ারত করেন। নগরীর লালদিঘী ময়দানে জনসভার অনুমতি চেয়ে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কাছে আবেদন করেছিল নগর বিএনপি। তবে পুলিশ লালদিঘীতে সমাবেশের অনুমতি না দিয়ে ঐক্যফ্রন্টকে ২৫ শর্তে নাসিমন ভবনে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে জনসভার অনুমতি দেয়।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর দ্বিতীয় জনসভা চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রথম জনসভা হয়েছে গত ২৪ অক্টোবর সিলেটে।