পোস্তগোলায় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ-গোলাগুলি, নিহত ১, আহত শতাধিক পুলিশ

শুক্রবার, অক্টোবর ২৬, ২০১৮

ঢাকা: টোল বাড়ানোকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষে পোস্তগোলা ব্রিজ এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। সংঘর্ষে পুলিশের গুলিতে একজনের মৃত্যু হয়েছে। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আরও দুই জন। অন্যদিকে, শতাধিক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন এক পুলিশ সদস্য।
শুক্রবার (২৬ অক্টোবর) সকাল থেকে শুরু হওয়া এই সংঘর্ষ এখনও দফায় দফায় চলছে। গোটা এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পাশাপাশি সংঘর্ষের কারণে পোস্তগোলা ব্রিজ ঘিরে উভয় পাশের যানচলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে। এতে ব্রিজের দুই পাশেই তৈরি হয়েছে দীর্ঘ যানজট।
জানা গেছে, শুক্রবার সকাল ৮টায় পোস্তগোলা ব্রিজে টোল বাড়ানোকে কেন্দ্র করে টোল প্লাজায় কর্মরতদের সঙ্গে ট্রাক শ্রমিকদের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়। পুলিশ এ সংঘর্ষ থামাতে গেলে তাদের ওপর চড়াও হয় শ্রমিকরা।

এসময় শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি ছুঁড়তে শুরু করে পুলিশ।
একজন পুলিশ সদস্য জানান, শ্রমিকরা বেশকিছু পুলিশকে পোস্তগোলা ব্রিজের নিচের দিকে একটি দোকানে অবরোধ করে রাখে। পরে ওই দোকানে আগুন দেওয়ার চেষ্টাও করে শ্রমিকরা।
কেরাণীগঞ্জ থানার কনস্টেবল রফিক জানান, শ্রমিকরা পুলিশের ওপর চড়াও হয়ে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে। তারা প্রায় দুই ট্রাক ইট ফেলে রাস্তা অবরোধ করে। পরে সেগুলোই পুলিশের ওপর ছুঁড়তে থাকে। এতে একের পর এক পুলিশ সদস্য আহত হতে থাকলে পুলিশ অ্যাকশনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এ ঘটনায় শতাধিক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

এদিকে, পুলিশের গুলিতে একজন ট্রাকচালক নিহত হয়েছেন। এর বাইরে একজন ভিক্ষুক ও একজন পথচারীও গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।
কেরাণীগঞ্জের ইকুরিয়া জেনারেল হাসপাতালের ম্যানেজার কারিমুল হাসান বলেন, সকাল ১০টা ১০ মিনিটে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তিন জন হাসপাতালে আসেন। এর মধ্যে একজন ছিলেন ট্রাকচালক। তার পেটে গুলি লেগেছিল। চিকিৎসাধীন অবস্থাতে তার মৃত্যু হয়।

কারিমুল হাসান জানান, বাকি দুজনের দুই পায়েই গুলি লেগেছিল। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
শ্রমিকরা বলছেন, পোস্তগোলা ব্রিজে আগের ট্রাকের টোল ছিল ৩০ টাকা। গত ২২ অক্টোবর সেই টোল বাড়িয়ে করা হয় ২৪০ টাকা। হঠাৎ করে এত বেশি টোল বাড়ানোয় তারা বিপাকে পড়েছেন। অবিলম্বে এই টোল কমিয়ে আনার দাবি জানান তারা।