ভারতে জনতার ওপর ট্রেন, নিহত বেড়ে ৬১

শনিবার, অক্টোবর ২০, ২০১৮

অনলাইন ডেস্ক; রেল লাইনের উপর এবং পাশে দাঁড়িয়ে দশেরার রাবণ পোড়ানো দেখছিলেন কয়েকশ মানুষ। আর সেই ভিড়ের উপর দিয়েই দুরন্ত গতিতে চলে গেল ট্রেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় ভয়াবহ এই দুর্ঘটনা ঘটেছে ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যের রাজধানী অমৃতসরের চৌরি বাজার এলাকায়।

এ ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬১ হয়েছে। আহত হয়েছে আরো ৭২ জন। এদরে মধ্যে কমপক্ষে ১৫ জনের অবস্থা গুরুতর। তাই নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা পুলিশ ও উদ্ধারকারীদের।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম জানায়, শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টা নাগাদ রেল লাইনের পাশে দশেরার রাবণের কুশপুত্তল পোড়ানো হচ্ছিল। পঞ্জাবের অমৃতসর এবং মানাওয়ালা স্টেশনের মাঝখানে ২৭ নম্বর রেলগেট লাগোয়া মাঠে তখন সবে শুরু হয়েছে দশেরার অনুষ্ঠান।

রেললাইনের পাশে সেই রাবণ পোড়ানো দেখতে দাঁড়িয়ে ছিলেন বহু মানুষ। রাবণ পোড়ানোর সময়ে বাজির আগুন ছিটকে আসতে থাকে। দর্শকদের একাংশ সরে লাইনের উপর উঠে আসেন। আর সেই সময়তেই ওই লাইন ধরে চলে আসে দ্রুত গতির একটি ট্রেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, আপ এবং ডাউন দুই লাইনেই এক সঙ্গে ট্রেন চলে আসে। তাই কোনও দিকেই সরতে পারেননি দর্শকরা। ট্রেনের চাকার তলায় পিষে যায় একের পর এক মানুষের দেহ।

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, বাজির আওয়াজে ঢাকা পড়ে গিয়েছিল ট্রেনের আওয়াজ। তাই কেউ শুনতে পাননি। তাদের অভিযোগ, রাবণ দাহ যারা করছিলেন সেই আয়োজকরা অন্তত মানুষকে সতর্ক করতে পারতেন।

উত্তর রেলের জনসংযোগ কর্মকর্তারা বলেন, সন্ধ্যা সাড়ে ছ’টা নাগাদ দুর্ঘটনাটি ঘটে অমৃতসর এবং মানেওয়ালার মাঝখানে ২৭ নম্বর গেটের সামনে। একটি ডিএমএউ ট্রেন চলে যায় ভিড়ের উপর দিয়ে।

দুর্ঘটনার পরই পুলিশের বিশাল বাহিনী উদ্ধার কাজ শুরু করে। উদ্ধারকারীদের একজন বলেন, ‘ট্রেনটির গতি যথেষ্ট বেশি ছিল। অনেক দেহ লাইন থেকে প্রায় পঞ্চাশ মিটার দূরে ছিটকে গিয়েছে ট্রেনের ধাক্কায়।’

অমৃতসর পুলিশ জানায়, ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়েছে ৫০ জনের। আরও অনেকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। হাসপাতালে মারা যান অনেকে। পুলিশের অনুমান মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে, কারণ এখনও উদ্ধার কাজ শেষ হয়নি।

আলোর অভাবে উদ্ধার কাজ প্রথম দিকে যথেষ্ট ব্যহত হয়। টর্চ এবং মোবাইলের আলোতে উদ্ধার কাজ চালাতে হয়। উদ্ধারকারীদের একজন বলেন, লাইনের পাশে প্রায় ১০০ মিটার জায়গা জুড়ে পড়ে ছিল ছিন্ন ভিন্ন মানুষের দেহ। দেহাংশ ছড়িয়ে রয়েছে লাইন জুড়ে।

পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দার সিংহ শনিবার সকালে ঘটনাস্থলে যাবেন। তিনি গোটা ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করে বলেন, আহতদের চিকিৎসার দায়িত্ব সরকারের।

ইতিমধ্যেই নিহদের প্রতি পরিবারকে পাঁচ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে পঞ্জাব সরকার।

এ ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। পাশপাশি নিহতদের পরিবারগুলোকে ২ লাখ রুপি করে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে মোদি সরকার।

সূত্র: আনন্দবাজার